ডায়েট

ওজন কমানোর ১০ টি প্রয়োজনীয় টিপস

ওজন কমানোর ১০ টি প্রয়োজনীয় টিপস

শরীরের বাড়তি মেদ নিয়ে আজকাল অনেকেই চিন্তিত থাকেন। সুস্বাস্থ্যের জন্য তো বটেই আবার শারীরিক সৌন্দর্যের জন্যও নারী-পুরুষ উভয়েই ভাবেন ওজন কমানোর কথা। কিন্তু আমাদের কর্মব্যস্তময় জীবনের কারণে অনেক সময়েই ওজন কমানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যায়াম বা ডায়েট করা হয়ে ওঠে না।

ওজন কমানোর কিছু প্রয়োজনীয় টিপসঃ

তবে আপনি জানেন কি, আপনি কিছু সহজ কৌশল অবলম্বন করলে খুব সহজেই বাড়তি ওজন কমানো সম্ভব।

১) সবজি খান বেশি বেশিঃ এটা খুব সহজ কথা। আমরা অনেকেই জানি, সবজি খেলে ওজন কমে। হ্যাঁ, তাই আপনার থালায় বেশি বেশি সবজি রাখুন। কেননা সবজির মধ্যে রয়েছে পুষ্টি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এগুলো আমাদের শরীর ভালো ও সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

২) হাঁটুনঃ আপনার শরীরের বাড়তি ওজন কমাতে হাঁটার কোনো বিকল্প নেই। আর হাঁটা তো কেবল আপনার ওজনই কমাবে না, কমাবে আপনার হৃদরোগের ঝুঁকিও। এতে করে আপনার অনেক উপকার হবে যেমন, বিষণ্ণতা বা মন খারাপ ভাবও কমে যাবে অনেক।

৩) একটু কম খাওয়ার চেষ্টা করুনঃ  আপনি আগে যেখানে হয়তো তিনটি করে রুটি খেতেন, সেখানে একটি রুটি খান বা যেখানে আপনি এক থালা ভাত খেতেন, সেখানে এক কাপ ভাত খান। এর বদলে পেট ভরতে পারেন সবজি আর ফল দিয়ে।

৪) জাঙ্ক ফুড আর নয়ঃ  বার্গার আসলেই কি জাঙ্ক ফুড? কিংবা নাগেট বা পিজ্জা? এখনকার বাজারে এমনতর হাজারো মুখরোচক খাবার রয়েছে যা আপনার শরীরে বারোটা বাজাচ্ছে। কোনটা ছেড়ে কোনটা খাবেন, সেটা বড় কথা নয়। শেষ কথা হল, প্রসেসড বা প্রসেস করা এসব খাবার আপনাকে ছাড়তেই হবে। যদি মেদ কমাতে চান।

৫) ছোট থালায় খানঃ বড় থালায় খেলে একটু বেশি খাওয়া হয়ে যায়। তাই এখন থেকে চেষ্টা করুন ছোট থালায় খেতে। খাবারের পরিমান কমাতে চামচও ব্যবহার করতে পারেন। হাত দিয়ে খেলে হয়ত বেশি খাবার একবারে আপনি মুখে দেন। সেখানে হাতের বিকল্প চামচ ব্যবহার করলে খাবার কম গ্রহণ করা হয়।

৬) আলু পুরোপুরি বাদঃ আজ থেকে আপনার সব ধরনের খাবার থেকে আলু বর্জন করা বাঞ্ছনীয়। আলু আপনার শরীরের ইনসুলিনের মাত্রা অনেক গুণ বাড়িয়ে দেবে। একটু কষ্ট করে কদিন না হয় ফ্রেঞ্চফ্রাই আর আলুর ভর্তা দিয়ে ভাত নাই-বা খেলেন।

৭) পানি পান করুনঃ আজ থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করুন এতে শরীর আর্দ্র থাকে, যার ফলে আপনার পেট ভরা এমন ভাবও তৈরি হবে। ক্ষুধার পরিমাণও কম লাগবে, এ কারণে আপনি কম খাবেন, ধীরে ধীরে দেকতে পারবেন ওজনও কমে যাচ্ছে। যদি পারেন দিনে অন্তত ১০ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করার চেষ্টা করুন।  

৮) প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খেতে শুরু করুনঃ প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খাদ্যতালিকায় রাখতে পারেন। এতে আপনার শরীরের পেশি স্বাস্থ্যকর হবে। প্রোটিনযুক্ত খাবার বাদ দিলে শরীরে এরবাজে অনেক প্রভাব পড়বে। আপনার খাদ্য তালিকায় এখন থেকে সবজি, ডাল রাখতে পারেন। তবে আপনি লাল মাংস (গরু, খাসি) এগুলো এড়িয়ে চলুন।

৯) চিনি ও শর্করা থেকে দূরে থাকুনঃ আজ থেকে চিনি বা মিষ্টি জাতীয় খাবার থেকে ১৫ দিন অন্তত দূরে থাকুন। পাশাপাশি যদি পারেন শর্করা জাতীয় খাবার কম খাবেন। ভাত, রুটি এবং আলু কম খান। এসব খাবার কম খেলে ওজন খুব দ্রুত কমে যাবে।

১০) ফ্রিজ পরিষ্কার করুনঃ শুনে আপনার হয়ত হাসি পাচ্ছে? মজার কথা হচ্ছে যে, ওজন কমানোর সঙ্গে আবার ফ্রিজ পরিষ্কারের সম্পর্ক কী? আসলে অবশ্যই সম্পর্ক আছে। আপনার ফ্রিজ বা রান্নাঘরে যেসব উচ্চমাত্রার ক্যালরিসমৃদ্ধ খাবার রয়েছে বা ফাস্টফুড রয়েছে, পারলে সেগুলো সরান। এর বদলে আপনি স্বাস্থ্যকর খাবার রাখুন। বলদি হিসাবে রাখতে পারেন ফল ও সবজি। স্বাস্থ্যকর খাবার যদি সামনে রাখেন তাহলে এসব খাওয়ার অভ্যাসও ধীরে ধীরে তৈরি হবে।

বর্তমান যুগের তরুণ তরুণীদের মাঝে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সচেতনতা বেড়েছে। অনেকেই দেখা যাচ্ছে শরীরে অতিরিক্ত মেদ চর্বি দেখা দিলে চিন্তিত হয়ে পড়েন। ব্যায়াম কিংবা খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে কীভাবে মেদ কমাবেন, সেই উপায় খুঁজে থাকেন তারা। চিন্তার আর কোন কারণ নেই। ই হাসপাতাল আছে আপনার দের পাশে। আমরা সব বয়সি এবং সব ধরণের শারীরিক কন্ডিশনের মানুষের জন্য ডায়েট কন্ট্রোল করার প্ল্যান করেছি। এই জন্য ইহাসপাতালের ব্লগটি নিয়মিত পড়ুন। ডায়েট কন্ট্রোলের জন্য আপনার সবচেয়ে পছন্দের প্ল্যানটি বেছে নিন। এই বিষয়ে আরো বিস্তারিত পরামর্শের জন্য ফোন করুন আমাদের কাছে।

একদল নিবেদিত প্রান মানুষের স্বপ্নের ফসল ই হাসপাতাল। আমাদের মূল লক্ষ হচ্ছে সকল প্রকার স্বাস্থ্যসেবা সাধারণ দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া। চিকিৎসা বিষয়ক সুপরামর্শ প্রদান করা, বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের অ্যাপয়েন্টমেন্টের ব্যবস্থা করে দেওয়া, প্রয়োজনে হাসপাতালে ভর্তি ও সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা, দুর্লভ ঔষধ সমুহের প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা, সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন করার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছে ই হাসপাতাল।

জরুরী মুহূর্তে স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার জন্য অথবা আপনার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যার সমাধান পাওয়ার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

ইমেইলঃ support@ehaspatal.com;  ওয়েবসাইটঃ http://ehaspatal.com/

About the author

maroon

Add Comment

Click here to post a comment

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।